অদৃশ্য বন্ধন (পর্ব- ২)

অদৃশ্য বন্ধন


পর্ব- 
—–
অাজ সাত দিন হল! বিষণ্ন দিন কাটছে!মেঘলা অাকাশটা অামার মনের সমস্ত জুড়ে,মেঘলা অাকাশটাও যেন অামায় ছাড়ছে না। অামার ভাবনাগুলো অাজকাল যেন  ছড়িয়ে নেই। সীমাবদ্ধ হয়ে গেছে।অতি সাধারণ বিষয় ও কি মানুষের ভাবনাগুলোকে সীমাবদ্ধ করে দিতে পারে?অাসমার মতো অতি সাধারণ মেয়ে!অামি ভাবি, কিন্তু অাজকাল কেন জানি অবাক হই না! অামার মস্তিককে অামি এখনও অদ্ভুদ ভাবি এসব বিষয়ে।
.
অাজ সাত দিন কথা বলিনি! সেও ফোন দেয়নি। বড্ড অভিমানে এককোণে হয়ে রয়েছে মেয়েটা।এই ঘোর বর্ষায় এখন অমার কাছে কেউ নেই। দক্ষিণ জানালা দিয়ে পানির ঝাপটা অাসে।কিন্তু অাসমা নেই! এতক্ষণে সে জানালার গ্লাস লাগিয়ে অামার চশমাটা খুলে তার বা হাতে মুছতে গিয়ে স্বচ্ছ গ্লাস দিয়ে ঐ দূরের বৃষ্টি দেখাত।বৃষ্টির ঝাপটা অাজ অামায় ভিজিয়ে দিচ্ছে! জীবন্ত অভিমানগুলো ঠান্ডা বৃষ্টিতে ভেসে উঠে। অামি চোখের চশমাটা খুলে ফেলি, প্রকৃতির দৃষ্টিতে একবার নিজেকে চেয়ে দেখি। অামি কেন ভাবছি! জানি না! একবারও কি মনে পড়েনি তার ,অামার কথা। কিসের এক অদৃশ্য বন্ধন যেন অামায় টানছে। অামি অনুভব করছি। ভাবছি একা একা।অপর প্রান্তে সে কি করছে জানি। অামার মন বলছে, এই বৃষ্টিতে সে জানালার গ্লাসে অামার ছবি দেখছে। 
অার অভিমানগুলো ঝরে যাচ্ছে প্রচন্ড বৃষ্টির ঝাপটাতে। 
.
অামি অার ভাবতে পারছি না!মাথা ব্যাথা করছে। প্রচন্ড বিষণ্নতা অামায় ঘিরে ধরেছে। অামার ফোনের স্কিনে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি।হালকা বিপ-বিপ শব্দ হচ্ছে, ভেজা চশমাটা চোখে লাগিয়ে অামার ফোন দেখি। মেঘলা অাকাশে ভীড় করা অভিমানের ঘোর কাটিয়ে যেন ফোন রিসিভ করি।
–বৃষ্টিতে ভিজছো এখনো?
–হুম।
বোকার মত ‘হুম’ বলে চুপ করে রই অামি।
–অামাকেও কেন জানি বৃষ্টির ঝাপটাগুলো কাছে টানে।
–অসুস্থ হয়ে যাবে তো?
–অার তুমি?তুমি কি একবারও নিতে অাসবে না অামাকে?
–অামি অাসছি!
ফোন রেখে দৌঁড়ে যাই বাইক নিয়ে। এই ঘোর বৃষ্টিতে বিল্ডিংয়ের নিচে বাইকে বসে অাছি। স্রোতের মত বৃষ্টি গড়িয়ে যাচ্ছে অামার পা জুড়ে। খোলা জানালা দিয়ে অাসমা’র হাসিমাখা মুখের দিকে তাকিয়ে অাছি অামি।
সমস্ত অভিমান ভেঙ্গে নিজের বাবার  কাঁচঘেরা বাড়ি ফেলে এই ঘোর বৃষ্টিতে অাসমা ছুটে অাসে। খোলা অকাশের নিচে প্রচন্ড বৃষ্টিতে মুখোমুখি অামরা। দুজনের শরীর বেয়ে বৃষ্টি ঝড়ছে।
.
হঠাৎ বজ্রপাত!
অাসমা অামার বুকে।
অামি, তুমি অার  এই বৃষ্টিভেজা পৃথিবী যেন অামাদের বেঁধে নিল কোনো এক অদৃশ্য বন্ধনের ডোরে।
দুজনের চোখে অভিমানের অশ্রু।বন্ধন হৃদয়ে। এক যেন এক অদৃশ্য বন্ধন।

অদৃশ্য বন্ধন
✍ মো:আরিফুল ইসলাম(অারিফ)
।।একজন ভিন্নধর্মী লেখকের জগতে স্বাগতম।

অদৃশ্য বন্ধন  (পর্ব-৩)

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

0
    0
    Your Cart
    Your cart is emptyReturn to Shop